× প্রচ্ছদ বাংলাদেশ বিশ্ব রাজনীতি খেলা বিনোদন বাণিজ্য লাইফ স্টাইল ভিডিও সকল বিভাগ
ছবি ভিডিও লাইভ লেখক আর্কাইভ

দল বেঁধে অফিস ফাঁকি দিচ্ছেন সরকারি কর্মকর্তারা !

নাচোল (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধি

২২ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৯:০৬ পিএম

“বারোটায় অফিস আসি, দুটোয় টিফিন। তিনটেয় যদি দেখি সিগন্যাল গ্রীন, চটিটা গলিয়ে পায়ে, নিপাট নির্দ্বিধায় চেয়ারটা কোনোমতে ছাড়ি। কোনো কথা না বাড়িয়ে, ধীরে ধীরে পা বাড়িয়ে চারটেয় চলে আসি বাড়ি। আমি সরকারি কর্মচারী।”

ওপার বাংলার প্রতিবাদি কন্ঠশিল্পী নচিকেতা চক্রবর্তী এই গানের মাধ্যমে সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারিদের অফিস ফাঁকি দেওয়ার বিষয়টি নিখুঁতভাবে তুলে ধরেছেন। এরই বাস্তব চিত্র দেখা গেছে চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল উপজেলার বিভিন্ন সরকারি অফিসে। নিয়মনীতি উপেক্ষা করে ইচ্ছেমতো অফিস করছেন উপজেলার বিভিন্ন দপ্তরের বেশির ভাগ কর্মকর্তা। এতে ভোগান্তির শেষ নেই সেবা প্রত্যাশীদের।

মন্ত্রী পরিষদ বিভাগের জারি করা এক পরিপত্রে জানানো হয়, সকল সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারিদের সকাল ৯ টায় নিজ দপ্তরে উপস্থিত হতে হবে। এবং নতুন সময়ে অফিসে বিকাল ৩টা পর্যন্ত থাকতে বাধ্যামূলক। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সরকারি কর্মচারি শৃঙ্খলা আইন ২০১৪-এ বলা হয়েছে, কোনো কর্মকর্তা কর্মচারি পরপর দুইদিন দেরিতে কার্যালয়ে আসলে তার এক দিনের মূল বেতন কাটা যাবে। অফিসের সময় শেষ হওয়ার আগে বের হয়ে গেলেও এক দিনের বেতন কেটে নিবে সরকার। কিন্তু আইন এর প্রয়োগ নেই। আইনটি কাগুজে আদেশে পরিণত হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন সচেতন মহল।

বুধবার (২১ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ৯টা পেরিয়েছে। উপজেলা বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিএমডিএ) অফিসে গিয়ে দেখা যায়,বিএমডির সহকারি প্রকৌশলী শাহ মন্জুরুল আলমের অফিস খোলা রয়েছে,বসার চেয়ারটি ফাঁকা রয়েছে।১০টা পর্যন্ত অপেক্ষা করেও বিএমডির সহকারি প্রকৌশলী শাহ মন্জুরুল আলম কে অফিসে পাওয়া যাইনি।খোঁজ নিয়ে জানা যায় বিএমডির সহকারি প্রকৌশলী শাহ মন্জুরুল আলম প্রতিদিন রাজশাহী থেকে কমিউটার ট্রেনে বেলা ১১টায় নাচোল আসেন,এভাবেই তিনি নিয়মিত অফিস করেন। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আফম হাসানের ও একই চিত্র।

বৃহস্পতিবার (২২ সেপ্টেম্বর) দুপুর ১টা বেঁজে ২০মিনিট। মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা প্রভাতি মাহাতোর কার্যলয়ে খোঁজ নিয়ে দেখা যায়, তিনি দুপুর ১টা পর্যন্ত অফিসে ছিলেন,বৃহস্পতিবার তাই তিনি নাচোল হতে রাজশাহী গামি কমিউটার ট্রেনে রাজশাহীর বাসার উদ্দেশ্য রওনা দিয়েছেন এমটাই জানা গেল নাম না প্রকাশ করা এক সরকারি কর্মকর্তার কাছে। শুধু মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তাই নন,এদিন দল বেঁধে নাচোল হতে রাজশাহী গামি (দেড়টার ট্রেনে) কমিউটার ট্রেনে অফিস ফাঁকি দিয়ে রাজশাহীর বাসায় যান উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আফম হাসান,মৎস্য কর্মকর্তা আলী হোসেন শামীম,প্রাথমিক সহকারি শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুল মান্নান ও বনবিভাগ কর্মকর্তা। অথছ সরকারি নিয়ম অনুযায়ী এসব সরকারি কর্মকর্তাদের বিকাল তিনটা পর্যন্ত অফিসে থাকা বাধ্যতামূলক। অফিস ফাঁকি দেওয়া কর্মকর্তাদের মধ্যে উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্স এর ইউএইচও ডা:সুলতানা পাপিয়া ও রয়েছেন।সরকারি নিয়ম অনুযায়ী ২৪ঘন্টায় হাসপাতালের আবাসিক কোয়ার্টারে থাকা বাধ্যতামূলক।কিন্তু তিনি চাঁপাই সদর হতে প্রতিদিন বেলা ১১টায় নিজস্ব প্রাইভেটকার যোগে হাসপাতালে আসেন আবার দুপুর দেড়টার দিকে নিজ বাসা চাঁপাই সদরে চলে যান।

এসব কর্মকর্তার অফিসে সেবাগ্রহীতা সেবা নিতে গিয়ে ফিরে আসতে হয় খালি হাতে।বিষয়টি যেন দেখার কেউ নেই। ফলে সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারিরা দিন দিন বেপরোয়া হয়ে উঠছেন।এদিকে অফিস ফাঁকি দেওয়া কর্মকর্তা কর্মচারিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন স্থানীয় সচেতন মহল ও সেবাপ্রত্যাশীরা।

অফিস ফাঁকি দেয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা মাধ্যমিক কর্মকর্তা আফম হাসান বলেন, "আমি ট্রেনে রাজশাহীর বাসা যাচ্ছি, কিছু কথা থাকলে রবিবার অফিসে আসেন, আমি এখন ট্রেনের উপরে জুম মিটিং করতেছি" বলে ফোনটি কেটে দেন।

নাম না প্রকাশ করার শর্তে নাচোল উপজেলা সরকারি অফিসের এক কর্মকর্তা বলেন,প্রতিদিন এসব কর্মকর্তা অফিস ফাঁকি দিয়ে ট্রেনে রাজশাহী চলে যান।আমরা কয়েকজন কর্মকর্তা শুধু অফিসে নিয়মিত থাকি।আইন সবার জন্য সমান হওয়া দরকার বলে তিনি জানান।

নাচোল উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মোহাইমেনা শারমিন জানান, বিষয়টি তার জানা নেই। তদন্ত করে প্রয়োজনীয়  ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।


Sangbad Sarabela

সম্পাদক: আবদুল মজিদ

প্রকাশক: কাজী আবু জাফর

যোগাযোগ: । 01894-944220 । sangbadsarabela26@gmail.com, বিজ্ঞাপন: 01894-944204

ঠিকানা: বার্তা ও বাণিজ্যিক যোগাযোগ : বাড়ি নম্বর-২৩৪, খাইরুন্নেসা ম্যানশন, কাঁটাবন, নিউ এলিফ্যান্ট রোড, ঢাকা-১২০৫।

আমাদের সঙ্গে থাকুন

© 2022 Sangbad Sarabela All Rights Reserved.