× প্রচ্ছদ বাংলাদেশ বিশ্ব রাজনীতি খেলা বিনোদন বাণিজ্য লাইফ স্টাইল ভিডিও সকল বিভাগ
ছবি ভিডিও লাইভ লেখক আর্কাইভ

কক্সবাজারে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা কাটিয়ে আমন ধান ঘরে তুলছেন কৃষক

কক্সবাজার প্রতিনিধি

২৪ নভেম্বর ২০২২, ১৫:১৩ পিএম

আমনের বীজতলা তৈরি ও আমন রোপণে শুরুতেই খরা আর অনাবৃষ্টির কবলে পড়েছিলেন চাষিরা। আষাঢ়-শ্রাবণে ভরা বর্ষায় কাঙ্ক্ষিত বৃষ্টিপাত না হওয়ায় উদ্বিগ্ন ও শঙ্কায় ছিলেন তারা। শ্রাবণের শেষে হালকা বৃষ্টিপাতে আবাদের স্বপ্ন বুনেছিলেন কৃষক। উদ্বেগ-উৎকন্ঠা কাটিয়ে এখন আশার আলো ছড়াচ্ছে আমন ক্ষেত।

কক্সবাজার জেলায় শুরু হয়েছে রোপা আমনের আগাম জাতের ধান কাটার উৎসব। আগাম জাতের ধানের সোনালি শীষে ভরে গেছে কৃষকের খেত। বাতাসে ঢেউ তুলছে সোনালি ধানের শীষ। ফসল ঘরে তুলতে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকেরা। ধান কাটা-মাড়াই কাজে কৃষকের পাশাপাশি ব্যস্ততা বেড়েছে দিনমজুরদেরও।সোনালি ধান হাসি ফুটিয়েছে তাদের মুখে। জেলার মহেশখালী, চকরিয়া, পেকুয়া উখিয়াসহ সব উপজেলার বিভিন্ন জমিতে এখন শোভা পাচ্ছে আগাম জাতের রোপা আমন ধান। সোনালি ধানের ঘ্রাণে ভরে আছে মাঠ। সব জায়গায় চলছে ধান কাটার উৎসব।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, উচ্চ ফলনশীল জাতের ধান চাষে কৃষকরা আগ্রহী হচ্ছে। এর ফলে একই জমিতে তিনটি ফসল আবাদ করা সম্ভব হচ্ছে। এতে আর্থিকভাবে লাভবান হবে কৃষকরা।

জেলায় চলতি আমন মৌসুমে ৭৮ হাজার ৮৪৫ হেক্টর জমিতে রোপা আমন চাষ করা হয়েছে। গত বছরের তুলনায় এইবারে ৮০ হেক্টর জমিতে আমন চাষ হয়নি। তার কারণ হিসেবে কৃষি কর্মকর্তা জমি অধিকরণ হওয়ার অনেক ফসলি জমিতে চাষাবাদ হয়নি। ফলে লক্ষমাত্রা ঘাটতি থাকবে।

এইবারের লক্ষমাত্রা নির্ধারণ ছিল ৭৮ হাজার ৯৩০ হেক্টর। এরমধ্যে হাইব্রিড ১২ উফশী ৩৪ এবং দেশীয় তিন জাতেরসহ ৪৯ জাতের আবাদ হয়েছে বলে তথ্য দিয়েছেন জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর।  ব্রি- ৫১, ৫২, ৫৬, ৫৭, ৭১, ৭২, ৭৩, ৭৫সহ হাইব্রিড ১২ জাতের, উফশী বিআর ১০, ১১, ২২, ২৩সহ ৩৪ জাতের এবং বিন্নি, সাহেব চিকন কালাম পাজাম। কম সময়ে ফলন এবং কম খরচে এই নতুন জাতের ধান চাষ করে সফলতা পেয়েছেন কক্সবাজারের অনেক কৃষক।

জেলার প্রায় ৯০ শতাংশ মানুষ কোনো না কোনো পর্যায়ে কৃষি কাজের সাথে জড়িত। চলতি বোরো মৌসুমে ধানের বাম্পার ফলন ও ভালো দাম আশা করছেন চাষিরা। 

কৃষি অফিস বলছেন, জেলায় এখনো পর্যন্ত  ১৫ শতাংশ ধান কেটেছে কৃষকরা। নভেম্বর মাসজুড়ে ধান কাটা হবে, তখন কি পরিমাণ ধান কৃষক ঘরে তুলেছে জানা যাবে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. কবির হোসেন জানান, লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে আবাদ কিছুটা কম হয়েছে। তবে আশানুরূপ ফলন আশা করছি। তিনি আরোও বলেন কৃষকদের মাঝে ব্যাপক চাহিদা থাকায় আগামীতে জেলায় এই জাতের ধানের চাষ বাড়বে বলে আশা প্রকাশ করেন কবির হোসেন।

Sangbad Sarabela

সম্পাদক: আবদুল মজিদ

প্রকাশক: কাজী আবু জাফর

যোগাযোগ: । 01894-944220 । sangbadsarabela26@gmail.com, বিজ্ঞাপন: 01894-944204

ঠিকানা: বার্তা ও বাণিজ্যিক যোগাযোগ : বাড়ি নম্বর-২৩৪, খাইরুন্নেসা ম্যানশন, কাঁটাবন, নিউ এলিফ্যান্ট রোড, ঢাকা-১২০৫।

আমাদের সঙ্গে থাকুন

© 2022 Sangbad Sarabela All Rights Reserved.