× প্রচ্ছদ বাংলাদেশ বিশ্ব রাজনীতি খেলা বিনোদন বাণিজ্য লাইফ স্টাইল ভিডিও সকল বিভাগ
ছবি ভিডিও লাইভ লেখক আর্কাইভ

মঠবাড়িয়ায় অধিকাংশ সরকারি ওয়েবসাইটে নেই হালনাগাদ তথ্য

মঠবাড়িয়া (পিরোজপুর) প্রতিনিধি

১৮ ডিসেম্বর ২০২২, ১৪:০৪ পিএম । আপডেটঃ ১৮ ডিসেম্বর ২০২২, ১৪:১৫ পিএম

পিরোজপুরের বৃহত্তর মঠবাড়িয়া উপজেলার অধিকাংশ সরকারি ওয়েবসাইটে নেই হালনাগাদ তথ্য। দীর্ঘদিন ধরে এসব ওয়েবসাইট আপডেটবিহীন বেহাল অবস্থায় রয়েছে। অথচ ডিজিটাল ব্যবস্থার সুফল নিয়ে দেশের মানুষকে উদ্বুদ্ধ করতে সরকারের প্রচারণার কমতি নেই। উপজেলার বিভিন্ন সরকারি ওয়েবসাইটে সরকারের উন্নয়নমূলক কাজের সম্প্রতি কোনো তথ্য, সেবা, পরিষেবা, আপডেট সিটিজেন চার্ট, খবর, নোটিশ পাওয়া যায় না। ফলে ডিজিটাল বাংলাদেশে ঘরে বসে সহজেই তথ্যপ্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন মঠবাড়িয়াবাসী।

এরইমধ্যে মঠবাড়িয়া উপজেলাতে নানা কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে পালিত হয়ে গেল ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস। ওই দিন শহীদ মাখন লাল দাস মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত এক আলোচনা সভায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার ঊর্মি ভৌমিককে বলতে দেখা যায় তার কার্যালয় সহ বিভিন্ন সরকারি অফিসের জরুরি তথ্যপ্রাপ্তি এখন অনলাইনে ঘরে বসেই যেকেউ ওয়েবসাইটে পাচ্ছে।  কিš' বাস্তবে দেখাগেল তার ভিন্ন চিত্র।

উপজেলার সরকারি ওয়েবসাইট পর্যবেণ করে দেখা গেছে, উপজেলা নির্বাহী এ কর্মকর্তা ২০২০ সালের ২৩শে এপ্রিল যোগদানের পর এখন পর্যন্ত ওয়েবসাইটে দপ্তরের কার্যক্রম, গুরুত্বপূর্ণ নোটিশ, খবর, বিভিন্ন দিবস সভার কার্যবিবরণী, উন্নয়ন প্রকল্পের তথ্য ওয়েবসাইটে আপলোড হয়নি। ওয়েবসাইটে খবর অপশনে গিয়ে দেখাযায় সর্বশেষ ২০১৯ সালের ১০ ডিসেম্বর তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত ইউএনও রিপন বিশ্বাস স্বারিত ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস এর একটি পুরানো আমন্ত্রনপত্র আপকরা। এরপর আর কোন সভা, জাতীয় দিবসের প্রস্তুতিমুলক সভার কার্যবিবরনী, দপ্তরের কার্যক্রম, গুরুত্বপূর্ণ নোটিশ, খবর ওয়েবসাইটে আপ হতে দেখা যায়নি।

সাইটটির কর্মকর্তাগন এর অপশনে ইউএনও ঊর্মি ভৌমিক এর ছবি সহ নামের নিচে মোঃ আরিফ বিল্লাহ নামের এক উপজেলা ডিজিটাল সেন্টারের উদ্যোক্তাকে কর্মকর্তা হিসেবে দেখানো হয়েছে। আবার কর্মচারীবৃন্দ অপশনে দেখা যায় উপজেলা প্রশাসনের মাত্র একজন কর্মচারী। বাস্তবে বেশি থাকলেও ওয়েবসাইটের তথ্যে তা বলে না। 

উপজেলার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অপশনে প্রাথমিক, মাধ্যমিক স্কুল, মাদ্রাসা ও কলেজের কোন তথ্য নেই। ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান ক্যাটাগরির অপশনে মসজিদ, ঈদগাহ, কবর¯'ানের ইউনিয়ন ভিত্তিক নাম উল্লেখ থাকলেও অবাক করার মত তথ্য পাওয়া গেছে। সেখানে দেখা যায় মসজিদের নাম প্রজাপতি জামে মসজিদ, উটখাড়া জামে মসজিদ, প্রেমু মধ্যপাড়া জামে মসজিদ,পদুয়া আদি জামে মসজিদ, লুতু ভুঞা কমপ্লেক্স সংলগ্ন জামে মসজিদ, বিষ্ণুপুর জামে মসজিদ, জগন্নাথপুর জামে মসজিদ। সাইটটির তালিকাতে নেই প্রায় ২০০ বছরের ঐতিহ্যবাহী কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ, ঈদগাহ ও গোরস্তানের নাম। পাওয়া যায় প্রজাপতি পারিবারিক কবর¯'ানের নাম। এসব তথ্যে যেমন একদিকে বিভ্রান্তি ও চরম ভোগান্তিতে পড়ছেন সেবাগ্রহীতারা অন্যদিকে তথ্যপ্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত হ"েছ সচেতন মানুষ। সরকারি সেবার বিভিন্ন তথ্য সাধারণ মানুষ অবাধে না জানার ফলে মাঠ পর্যায়ে দুর্নীতিও বাড়ছে বলেও অনেকে মনে করেন।

অনুসন্ধানে দেখা গেছে, উপজেলা প্রশাসন, একটি পৌরসভা ও ১১টি ইউনিয়নের সরকারি অর্ধশতাধিক ওয়েবসাইটই রয়েছে। এসব ওয়েবসাইটের অধিকাংশেইর হালনাগাদ নেই। উপজেলার সরকারি প্রতিটি দপ্তর বিভাগ ও অধীন উপ-দপ্তরসহ সব দপ্তরের ওয়েবসাইট থাকা বাধ্যতামূলক। কিন্তু কোথাও  হালনাগাদ তথ্য নেই।

উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রন অফিস, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস, থানা, সমাজসেবা, মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর, উপজেলা প্রাণী সম্পদ অফিস সহ বেশ কিছু সরকারি পোর্টালে নেই চলতি দায়িত্বরত কর্মকর্তাদের তথ্য। এই সাইট গুলোতে কর্মকর্তাব"ন্দের অপশনে যাদের নাম, ছবি ও মোবাইল নম্বর দেওয়া আছে তাদের অনেকে বদলি হয়ে অন্যত্র কর্মরত রয়েছে। তথ্যবাতায়ন পৌরসভার সাইটে মেয়র অপশনে ঢুকলে দেখা যায় ইউএনও মেয়র। তাছাড়া দপ্তরের কার্যক্রম, গুরুত্বপূর্ণ নোটিশ, কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগের তথ্য, বিভিন্ন সভার কার্যবিবরণী, উন্নয়ন প্রকল্পের তথ্য নেই অধিকাংশ ওয়েবসাইটে।

ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এটুআই প্রকল্প এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের যৌথ উদ্যোগে সারা দেশের জেলা, উপজেলা থেকে ইউনিয়ন পর্যায়ের সরকারি দপ্তরের গুরুত্বপূর্ণ তথ্যের সমন্বয়ে জাতীয় তথ্য বাতায়নের আওতায় আলাদা আলাদা ওয়েব পোর্টাল তৈরি করা হয়েছে। যাতে করে সাধারণ নাগরিকেরা ঘরে বসেই নিজ নিজ এলাকার প্রয়োজনীয় তথ্য ও সেবা অনলাইনে পেতে পারে।

কিন্তু মঠবাড়িয়া উপজেলার সরকারি পোর্টালগুলোতে সরকারের উন্নয়নমূলক সহ গুরুত্বপূর্ণ অনেক তথ্য অনলাইনে না পাওয়াকে সংশ্লিষ্টদের উদাসীনতা ও তদারকির অভাবকে দায়ী করেছেন সচেতন মহল।

মঠবাড়িয়া খবরের বার্তা সম্পাদক মো. শাকিল আহম্মেদ বলেন, সংবাদ তৈরির কাজে প্রায় সময়ই বিভিন্ন তথ্যের প্রয়োজন হয়। উপজেলা প্রশাসন ও বিভিন্ন সরকারি ওয়েবসাইটে কোন হালনাগাদ তথ্যই পাওয়া যায় না। আবার সন্নিবেশিত তথ্যেও রয়েছে বেশ ভুল। এগুলো সংশ্লিষ্টদের উদাসীনতা ও তদারকির অভাব ছাড়া আর কিছুই না।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) র্ঊমি ভৌমিক বলেন, আমরা খুব শীঘ্রই হালনাগাদ করে ভুল তথ্যগুলোকে সংশোধন করব। ইন্দুরকানী উপজেলার এসিস্ট্যান্ট প্রোগ্রামার (এপি) অতিরিক্ত দায়িত্বে আছেন মঠবাড়িয়ায়। মূলত লোকবলের অভাবে কাজটি এতোদিনে হয়নি। অতি দ্রুতই সংশ্লিষ্ট ডিপার্টমেন্টের সাথে কথা বলে আলাদাভাবে হলেও একটি প্রশিণের আয়োজন করব। যাতে করে কর্মকর্র্তাগণ তাদের নিজ ডিপার্টমেন্টের তথ্য তারাই হালনাগাদ করতে পারে।



Sangbad Sarabela

সম্পাদক: আবদুল মজিদ

প্রকাশক: কাজী আবু জাফর

যোগাযোগ: । 01894-944220 । sangbadsarabela26@gmail.com, বিজ্ঞাপন: 01894-944204

ঠিকানা: বার্তা ও বাণিজ্যিক যোগাযোগ : বাড়ি নম্বর-২৩৪, খাইরুন্নেসা ম্যানশন, কাঁটাবন, নিউ এলিফ্যান্ট রোড, ঢাকা-১২০৫।

আমাদের সঙ্গে থাকুন

© 2023 Sangbad Sarabela All Rights Reserved.