× প্রচ্ছদ বাংলাদেশ বিশ্ব রাজনীতি খেলা বিনোদন বাণিজ্য লাইফ স্টাইল ভিডিও সকল বিভাগ
ছবি ভিডিও লাইভ লেখক আর্কাইভ

সিলেট-৫

নৌকা রেখে স্বতন্ত্র প্রার্থীর পাশে আ.লীগ

মাহমুদ খান, সিলেট ব্যুরো

০৪ জানুয়ারি ২০২৪, ১৮:৪১ পিএম

সিলেট-৫ (জকিগঞ্জ ও কানাইঘাট) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মাসুক উদ্দিন আহমদ (নৌকা), স্বতন্ত্র প্রার্থী মোহাম্মদ হুছামুদ্দীন চৌধুরী (কেটলি) ও আহমদ আল কবিরের (ট্রাক) মধ্যেই মূলত তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে, এমনটাই আভাস পাওয়া গেছে।

এ আসনে জাতীয় পার্টি থেকে শাব্বীর আহমদ (লাঙল), তৃণমূল বিএনপি থেকে কুতুব উদ্দীন আহমদ শিকদার (সোনালী আঁশ), বাংলাদেশ কংগ্রেস থেকে বদরুল আলম (ডাব) ও মুসলিম লীগ-বিএমএল থেকে খায়রুল ইসলাম (পাঞ্জা) প্রতীক নিয়ে নির্বাচনের মাঠে নেমেছেন। যদিও মঙ্গলবার সিলেট জেলা প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে নির্বাচন কমিশন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানে আশ্বস্ত করলেও বাস্তবে সে পরিবেশ নেই জানিয়ে নির্বাচনের মাঠ থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন জাপার প্রার্থী সাব্বির।

জানা গেছে, এ আসনে ভোটের সময় ইসলামি দলগুলো ভোটের মাঠে বড় নিয়ামক হয়ে দেখা দেয়। জাতীয় নির্বাচনের ইসলামি দলগুলোর মধ্যে হয় সংসদ সদস্য নতুবা দ্বিতীয় অবস্থান। এবারো এ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর সঙ্গে স্বতন্ত্র প্রার্থী মোহাম্মদ হুছামুদ্দীন চৌধুরী তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতার আভাস পাওয়া গেছে।

ভোটাররা জানান, লড়াই হবে মূলত ত্রিমুখী। আওয়ামী লীগের প্রার্থী মাসুক উদ্দিন আহমদ (নৌকা) এবং আনজুমানে আল ইসলাহের সভাপতি হুছামুদ্দীন এবং  সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আল কবিরের মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ১৯৯১ সালে পঞ্চম সংসদ নির্বাচনে ইসলামী ঐক্যজোটের ওবায়দুল হক এবং ২০০১ সালে অষ্টম সংসদ নির্বাচনে জামায়াতে ইসলামীর ফরিদ উদ্দীন চৌধুরী এ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। দশম ও একাদশ সংসদ নির্বাচনে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের ওবায়দুল্লাহ ফারুক দ্বিতীয় এবং সপ্তম ও নবম সংসদ নির্বাচনে জামায়াতে ইসলামীর ফরিদ উদ্দীন চৌধুরী দ্বিতীয় হন।

স্বাধীনতার পর সিলেট-৫ আসনে চারবার আওয়ামী লীগ, তিনবার জাতীয় পার্টি, একবার করে বিএনপি ও স্বতন্ত্র প্রার্থী সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তবে বিগত সব কটি সংসদ নির্বাচনে বিভিন্ন ইসলামি দলের নেতারা এখানে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে উল্লেখযোগ্য ভোট পান। ফলে এখানে ভোটের মাঠে বরাবরই ইসলামি দলগুলোর ভোটব্যাংক সব সময় আলোচনায় থাকে।

স্থানীয় রাজনৈতিক নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমদ একজন সৎ ও নির্লোভ ব্যক্তি হিসেবে স্থানীয়ভাবে তিনি সর্বজনমান্য। এ আসনে দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আহমদ আল কবির। স্বতন্ত্র হিসেবে প্রার্থী হয়েছেন হুছামুদ্দীন চৌধুরী। তাঁর প্রয়াত বাবা আল্লামা আবদুল লতিফ চৌধুরী সারা দেশে ‘ফুলতলী হুজুর’ হিসেবে পরিচিত। আবদুল লতিফের তৈরি করা সংগঠন আনজুমানে আল ইসলাহের অসংখ্য ভক্ত ও মুরিদ আছেন। ফুলতলী অনুসারীদের সিলেট-৫ আসনে একটা ‘ভোটব্যাংক’ আছে।

জানা গেছে, এ আসনে আওয়ামী লীগ এখন তিন ভাগে বিভক্ত। দুটি পক্ষ মাসুক উদ্দিন আহমদ ও আহমদ আল কবিরের পক্ষে  সক্রিয়। আরেকটি বৃহৎ অংশ ভেতরে-ভেতরে সক্রিয় আছে হুছামুদ্দীনকে নিয়ে। ওই পক্ষ তাঁদের কর্মী-সমর্থকেরা হুছামুদ্দীনের প্রচার-প্রচারণা ও গণসংযোগেও অংশ নিচ্ছেন।

হুছামুদ্দীনকে সমর্থন দিয়ে জকিগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগ ২৯ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার বিকেলে পৌর শহরে কেটলি প্রতীকের পক্ষে প্রচার মিছিল করেছে। নৌকা প্রতীকের প্রার্থী থাকা সত্ত্বেও ওপর মহলের চাপে আওয়ামী লীগের ওই পক্ষ হুছামুদ্দীনের পক্ষে কাজ করছে বলে একটি সূত্র দাবি করেছে। তবে ওপর মহল কারা, তা তারা খোলাসা করেননি।

এ ব্যাপারে মাসুক উদ্দিন আহমদ বলেন, এলাকার সব মানুষ আমার পক্ষে। আওয়ামী লীগও ঐক্যবদ্ধ। তবে তলেতলে দলের কিছু নেতা-কর্মী হুছামুদ্দীনের পক্ষে আছে। ওই ব্যক্তিরাই আওয়ামী লীগকে শেষ করে দিচ্ছে। তবে কাজ হবে না, নৌকার বিজয় হবেই।

রিটার্নিং কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, এ আসনে মোট ভোটার ৪ লাখ ২ হাজার ৩২৫ জন এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ২ লাখ ০৫ হাজার ৬৬৩ ও নারী ভোটার ১ লাখ ৯৬ হাজার ৬৬২। 

Sangbad Sarabela

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী আবু জাফর

যোগাযোগ: । 01894-944220 । [email protected], বিজ্ঞাপন: 01894-944204

ঠিকানা: বার্তা ও বাণিজ্যিক যোগাযোগ : বাড়ি নম্বর-২৩৪, খাইরুন্নেসা ম্যানশন, কাঁটাবন, নিউ এলিফ্যান্ট রোড, ঢাকা-১২০৫।

আমাদের সঙ্গে থাকুন

© 2024 Sangbad Sarabela All Rights Reserved.