× প্রচ্ছদ বাংলাদেশ বিশ্ব রাজনীতি খেলা বিনোদন বাণিজ্য লাইফ স্টাইল ভিডিও সকল বিভাগ
ছবি ভিডিও লাইভ লেখক আর্কাইভ

নারায়ণগঞ্জে যানজট নিরসনে অবৈধ গাড়ি বন্ধ ও হকার উচ্ছেদের সিদ্ধান্ত

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি

০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৫:৪৪ পিএম

নারায়ণগঞ্জ মহানগরীতে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সমস্যা মানব চলা ও যানজট।নগরীতে যানবাহন এবং হকারের কারনে মানব ও যানজট সৃস্টি হয়।এটা দুঃসহ ও বেদনাদায়ক এবং অর্থনৈতিক স্হবিরতার বিষয়।সিটি কর্পোরেশন মেয়র, জাতীয় সংসদ সদস্য, প্রশাসনের কমকর্তা ও সুধী মহল বিষয়টির প্রতিকার করতে গোলটেবিল বৈঠকে বসেছিলেন।

নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাব আয়োজিত নিজস্ব ভবনে শনিবার দুপুরে নগরীর অন্যতম সমস্যা যানজট ও ফুটপাত দখল সমাধানে করণীয় শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী,জেলার-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান, জেলার-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মাহমুদুল হক,পুলিশ সুপার গোলাম মোস্তফা রাশেল( পিপিএম বার) পক্ষে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আমীর খসরু, ট্রাফিক বিভাগের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রুহুল আমিন সাগর,বিআরটিএ 'র সহকারী পরিচালক প্রকৌশলী মোঃ শামসুল কবীর,জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান চন্দন শীল বক্তব্য রাখেন।

স্বাগত বক্তব্য রাখেন প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম জীবন।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ নীটওয়্যার ম্যানুফেকচারার্স এন্ড এক্সপোর্টার্স এসোসিয়েশন (বিকেএমইএ)সহ সভাপতি মনসুর আহমদ, চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সহ সভাপতি মোর্শেদ সারোয়ার সোহেল,ক্লথ মার্চেন্ট এসোসিয়েশন সভাপতি প্রবীর কুমার সাহা, সোনারগাঁও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এডঃ শামসুল ইসলাম ভূইয়া, বন্দর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এম এ রশিদ,নাগরিক কমিটির সভাপতি এডঃ এবি সিদ্দিক,পরিবহন মালিক সমিতির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মোঃ শহীদউল্লাহ ও বিভিন্ন জনপ্রতিনিধি, ব্যবসায়িক প্রতিনিধি,সমাজকর্মী, সাংবাদিক উপস্হিত ছিলেন।

সভাপতিত্ব ও সূচনা বক্তব্যে প্রেসক্লাবের সভাপতি আরিফ আলম দীপু বলেন,আজ থেকে অতীত ভূলে যাবো।কেউ কারো বিরুদ্ধে বলবো না।সমস্যা সমাধান কল্পে কথা বলবো।সূচনা বক্তব্যে প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক রফিকুল ইসলাম জীবন বলেন,দেশের এক নম্বর ধনি জেলা হলেও বিভিন্ন সমস্যায় জর্জরিত। সংবাদকর্মী হিসেবে সমস্যা চিহৃিত করা। সমস্যা সমাধান জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের কাজ।সে লক্ষে আয়োজন।আজ থেকে নারায়ণগঞ্জের নতুন দিগন্ত উন্মোচন হবে।

সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডাঃ সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেন,নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন ট্রাক দিয়ে বন্দি করে রাখা হয়েছে।ট্রাকস্ট্যান্ড নিয়ে হাইকোর্টে মামলা করা হয়েছে।রায় হয়েছে।এরপরও ডিসি এসপি কোন ব্যবস্হা নেয়নি।সিটি কর্পোরেশন থেকে বৈধ অবৈধ স্ট্যান্ডের তালিকা দেয়া সত্তেও প্রশাসন কোন ব্যবস্হা নেয়নি।ইজিবাইক সরকার অনুমোদন দেয়না।সিটি কর্পোরেশন কেন বৈধতা দিবে!পুলিশ সুপার হকারদের পূনর্বাসনের প্রস্তাব দিয়েছেন।ছয়শত হকার পূনর্বাসন করেছি।তারপরও কি ফুটপাত হকার মুক্ত হয়েছে? তারা দোকান বিক্রি করে আবার ফুটপাতে ফিরেছে।

সিটি মেয়র আইভী "মৌমিতা বাস এ নগরীতে চলতে পারবে কি' না? " সবাই বলেন,তার আহবানে সমবেত সবাই মৌমিতা বাস চলতে পারবে না বলে সমস্মরে উচ্চারন করেন।মেয়র বলেন,ডিসি সাহেব,এসপি সাহেব তাৎক্ষনিক যে সিদ্ধান্ত দিয়েছেন-তা বাস্তবায়ন হোক।কলকাতা থেকে আগের নগরী নারায়ণগঞ্জ। নারায়ণগঞ্জ চারশ বছরের ঐতিহ্যবাহী। পতিতাপল্লী যেই উচ্ছেদ করেছে-সে সওয়াব পাবে।এগুলোর আর পুনরাবৃত্তি করবো না।আমার চৌদ্দ পুরুষ নারায়ণগইঞ্জা আমরা এ নগর নিয়ে গর্ব করি।

মেয়র বলেন,পৌরসভার মেয়র থাকাকালে মীরজুমলা সড়ক উচ্ছেদ করেছি।সিটি কর্পোরেশন সৃস্টি হবার পর চার মাসে যে প্রশাসক ছিলেন-তিনি ইজারা দিয়ে গেছেন।এরপর থেকে ধারাবাহিক হয়ে আসছে।ডিসি সাহেব,এসপি সাহেব কবে চান বলেন? গাড়ী চলবে,আমি তা খুলে দিবো।আমার লোক চাঁদাবাজি করে থাকলে ধরেন,আমার ভাই হলেও ধরেন,শামীম ভাইয়ের লোক হলেও ধরেন।আমার ব্যক্তিগত চাওয়া হলো আগের মতো সুন্দর নারায়ণগঞ্জ চাই।হকার থাকবে না,চাঁদাবাজি থাকবে না,ইভটিজিং থাকবে না।

মেয়র বলেন,২০১৮ সালে হকার নিয়ে শামীম ভাই ও আমার মধ্যে যে ভূল বুঝাবুঝি হয়েছিলো-সেটার সুবিধাভোগী অনেকেই।

সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান বলেন, নারায়নগঞ্জের সমস্যার কোন শেষ নাই।আজ এখানে কথা বললেই সমাধান হয়ে যাবে,এটা না।পুলিশ সুপার যা বললেন মেয়র মহোদয় এবং আমি তা মেনে নিতে পারছি না।আমাদের মধ্যে স্বজনপ্রীতি একটু বেশি।চোখের পর্দা উঠিয়ে নিতে হবে।তা না হলে কোন প্রতিকার মিলবে না।মেয়র যেটা বলেছেন,সেটা সত্যি।যানজট পুলিশের কাছে,ফুটপাত কার কাছে?  আমি গ্যারান্টি দিয়ে বলে দিতে পারছি ফুটপাতের সেল্টার দাতা একজনও স্হানীয় না।কোন পূনর্বাসন নয়,একটা ফুটপাতেও দোকান থাকবে না।কেন নারায়ণগঞ্জ ক্লাব হতে নারায়ণগঞ্জ কলেজ পর্যন্ত কেন সড়ক বন্ধ করে দিয়ে কাচামালের বাজার বসানো হয়েছে? এক দফা এক দাবী নারায়ণগঞ্জকে সন্ত্রাস মুক্ত,চাঁদাবাজি মুক্ত,ইভটিজিং মুক্ত,যানজট মুক্ত সড়ক হতে হবে।ইনশাহআল্লাহ এক বছরের মধ্যে মেয়র আইভী,সংসদ সদস্য শামীম ওসমানকে নিয়ে একটা সুন্দর নারায়ণগঞ্জ গড়বো।আর কোন দূরাবস্হা হবে না।

সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান বলেন, নারায়ণগঞ্জ তিনশ শয্যা হাসপাতালকে পাঁচশ শয্যা করেছি।কেউ একজন টেন্ডার নিয়েছে।এরপর আর হাসপাতাল হচ্ছে না।পাগলা সড়কটি আমরা ব্যবহার করতে পারছি না।এমন কি কোন দোকান নেই,বোরাক বাস,হুলার, ট্রাকস্ট্যান্ড। প্রশাসন এগুলো উচ্ছেদ করুন, না পারলে চলে যান।রোজার আগেই রাস্তাঘাট খালি হয়ে যাবে--রোজার পর আবার বসবে, তা হতে পারে না, হতে দেয়া যাবে না।

সংসদ সদস্য শামীম ওসমান বলেন, যানজট ও হকার সমস্যা নিয়ে বসেছি।এর চেয়েও বড় সমস্যা মাদকের বিরুদ্ধে আমি কাজ করছি।নারায়ণগঞ্জ-পাগলা সড়কটি একশ ২০ ফুট প্রশস্ত হবে।সিদ্ধিরগঞ্জে ফুটওভার ব্রিজ করা দরকার।তাহলে যানজট কমবে।আমি শীতল পরিবহনের মালিক।আমি গাড়ী রাখার স্হান করেছি।কিন্তু যারা অবৈধ স্ট্যান্ড ব্যবহার করে--ওরা অনেককে টাকা দিয়ে বসে।বাইরের জেলার নাইট কোচ কে অনুমতি দিলো? রাস্তায় কোন স্ট্যান্ড ইজারা দেয়া বন্দ করুন।দিনের বেলায় ট্রাক ঢুকতে পারবে না।পুলিশ রাত ১০ টার পর ভোর ৬ টার মধ্যে ট্রাক চলাচল শেষ করা হোক।

শামীম ওসমান বলেন,  ট্রেন সারা দিনে ১৬ বার আসা যাওয়া করে। তাই ট্রেন স্টেশন থাকলেও স্টেশন হতে চাষাঢ়া পর্যন্ত লাইনটি বন্ধ করে দেয়া হোক। যদি থাকেও-তাহলে শুধু ইন্জিন ঘুড়ানোর জন্য থাকুক। তাহলে যানজট কমবে। হকার উঠালে কবে উঠাবেন,সব উঠাতে হবে।সিটি কর্পোরেশন ম্যাজিস্ট্রেট দিন।ডিসি সাহেব ম্যাজিস্ট্রেট দিন।হকার উচ্ছেদ করুন।যদি ম্যাজিস্ট্রেট না দেন তাহলে দায়ি থাকবেন।

জেলা প্রশাসক মাহমুদুল হক বলেন,নারায়ণগঞ্জে আমার ছয় মাস পাড় হলো।যা বলা হয়েছে-সবগুলোর সাথে আমি পরিচিত।আমি বিআরটিএর কমিটি করে দিয়েছি।কমিটি কাজ করছে।পাঁচ মাসে সাড়ে পাঁচশ গাড়ীকে জরিমানা করেছি।আগামী কাল থেকে রুট পারমিট ছাড়া গাড়ী পেলে ডাম্পিংয়ে দিবো।অবৈধ স্ট্যান্ড থাকতে দিতে পারি না।কালকে থেকে ম্যাজিস্ট্রেট যাবে,মোবাইল কোর্ট কাজ করবে।রেল মন্ত্রনালয়ে চাষাঢ়া হতে এক নম্বর এলাকায় ট্রেন চলাচল বন্ধ করার জন্য মন্ত্রনালয়ে চিঠি দিবো,সচিব মহোদয়ের সাথে কথা বলবো।অটোবাইক ব্যাটারী কোথায় চার্জ দেয়া হয়,বন্ধ করে দিবো,সীল করে দিবো।জেলার বইরের বাসগুলো সড়কে থামিয়ে যাত্রী উঠায়।আমি কমপক্ষে ২০ টি বাসকে জরিমানা করেছি।হাকারদের আইডি কার্ড সংগ্রহ করে স্হানীয় বাসিন্দাদের পূনর্বাসন করা যেতে পারে।

ট্রাফিক বিভাগের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রুহুল আমিন সাগর বলেন, গাড়ী চলাচলের জন্য ৪ দশমিক ২ ব্যাসার্ধের সড়ক আছে।ঢাকা মেট্রোতে সকাল হতে রাত ৯ টা পর্যন্ত ট্রাক প্রবেশ নিষেধ। তাই সাইনবোর্ড এলাকায় থেমে থেকে ট্রাকগুলো দিনের বেলায় নারায়ণগঞ্জের উপর দিয়ে পদ্মা সেতুর দিকে যায়।সে কারনেও যানজট হয়।সিএনজি বা ইজিবাইকগুলোর সরকারী অনুমোদন নেই।ম্যাজিস্ট্রেট চাই, ব্যবস্হা নিবো।স্ট্যান্ডগুলো 

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আমীর খসরু বলেন, অনঅনুমোদিত ইজিবাইক চলছে,হাজার হাজার লোক জড়িত।হকার বসতে দেয়া হয়েছে।তাদেরও হাজার হাজার লোক জড়িত।তাদের জন্যই যানজট। অনঅনুমোদিত বাসগুলো সম্পূর্ণ রূপে বন্ধ করে দিতে হবে। মৌমিতা ৭০ টি অনুমতি আছে।১৭০ টি মৌমিতা চলতো।নিতাইগঞ্জের ট্রাক স্ট্যান্ড বিশাল সমস্যা।ট্রাক মালিক শ্রমিকদের সাথে বারবার বসি।তারা ওয়াদা করে যায়।তারপর তারা ওয়াদা রক্ষা করে না।আলমাস পয়েন্ট ও বিভিন্ন মার্কেটের পার্কিং নাই।সড়কে পার্কিং করা হয়।

জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান চন্দন শীল বলেন, এ নগরী ঐতিহ্যবাহী।বারবার বসতে হবে।সমস্যাগুলো অবশ্যই সমাধান হবে।

বিআরটিএ' র সহকারী পরিচালক শামসুল কবীর বলেন,ইজিবাইক বড় সমস্যা।এ গাড়ীগুলোকে সিটি কর্পোরেশনের মাধ্যমে বৈধতা দেয়া গেলে সমস্যা কিছুটা কমবে।

Sangbad Sarabela

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী আবু জাফর

যোগাযোগ: । 01894-944220 । [email protected], বিজ্ঞাপন: 01894-944204

ঠিকানা: বার্তা ও বাণিজ্যিক যোগাযোগ : বাড়ি নম্বর-২৩৪, খাইরুন্নেসা ম্যানশন, কাঁটাবন, নিউ এলিফ্যান্ট রোড, ঢাকা-১২০৫।

আমাদের সঙ্গে থাকুন

© 2024 Sangbad Sarabela All Rights Reserved.