× প্রচ্ছদ বাংলাদেশ বিশ্ব রাজনীতি খেলা বিনোদন বাণিজ্য লাইফ স্টাইল ভিডিও সকল বিভাগ
ছবি ভিডিও লাইভ লেখক আর্কাইভ

চায়ের দোকান করা সাকিব পেলো জিপিএ-৫

মো. খোকন, সাটুরিয়া (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি

১৬ মে ২০২৪, ১৮:৩৬ পিএম

পড়ালেখার প্রতি প্রবল আগ্রহ ছিল মানিকগঞ্জের সাটুরিয়ার চায়ের দোকানদার মো.নজরুল ইসলামের ছেলে সাকিব খানের। কিন্তু তার পড়ালেখায় বাধা হয়ে দাড়ায় দারিদ্রতা আর অভাব-অনটন। অবশেষে পড়ালেখার খরচ যোগাতে দেয় স্কুল শেষে বাবার চায়ের দোকানে কাজ শুরু করে সাকিব খান। আর এভাবে পড়ালেখা করেই এসএসসি পরীক্ষায় গোল্ডেন জিপিএ ৫ অর্জন করেছে মেধাবী শিক্ষার্থী সাকিব খান।

অধম্য মেধাবী সাকিব খানের পরীক্ষার ফলাফলে খুশিতে আত্মহারা মা-বাবাসহ সহপাঠী ও শিক্ষকরা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ছোটবেলা থেকেই পড়ালেখার প্রতি প্রবল ইচ্ছা ছিল সাকিব খানের। প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়ালেখা সময় পিএসসি ও জেএসসি পরীক্ষায় জিপিএ ৫ অর্জন করেছে। এরপর ভর্তি হয় সাটুরিয়া সরকারি আদর্শ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে। কিন্তু মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পড়ালেখার খরচ যোগাতে হিমশিমে পরতে হয় চায়ের দোকানদার বাবা মো.নজরুল ইসলামকে। একদিনে সংসারে নুন আনতে পান্তা ফুরায়। অন্যদিকে ছেলের পড়ালেখার খরচ আর প্রাইভেটের খরচ। দারিদ্রতা আর সংসারের অভাট-অনটনের মধ্যে নিজের পড়ালেখা চালিয়ে যেতে পড়ালেখার ফাঁকে ফাঁকে সাটুরিয়া বাজারের রুপালী ব্যাংকের নিচের বাবা নজরুল ইসলামের চায়ের দোকানে কাজে যোগ দেয় সাকিব খান। চায়ের দোকানে বাড়তি আয়ের টাকা দিয়ে নিজের পড়ালেখা আর প্রাইভেট চালিয়ে যেতে থাকে সাকিব খান। এরপর সাটুরিয়া সরকারি আদর্শ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের বিজ্ঞান বিভাগ থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে সাকিব খান এবং এবছর এসএসসি পরীক্ষায় বিজ্ঞান বিভাগ থেকে মেধার সাথে জিপিএ ৫ অর্জন করে।

সাকিব খানের বাবা নজরুল ইসলাম জানান,সংসারে অভাব অনটনের জন্য ছেলেকে ঠিকমতো ভালো জামা-কাপড়, ভালো খাবার দিতে পারি নাই। সংসারের অভাব-অনটন বুঝতে পেরে ছেলে (সাকিব খান) নিজে আগ্রহ করে আমার সাথে চায়ের দোকানে কাজ করেছে। ওর (সাকিব খান) পড়ালেখার প্রতি আগ্রহ দেখে আমরা কষ্টে চললেও সাকিবকে একটু ভালো রাখতে চেয়েছি। অভারের কারনে অনেক সময় বই খাতাসহ অনেক কিছু দিতে পারি নাই। ছেলের পড়ালেখার খবর জানতে পেরে আমাদের ইউএনও স্যার বেশ কয়েকবার আমাকে সাহায্য করেছে। আমার মতো মানুষের ছেলে পরীক্ষায় এতো ভালো রেজাল্ট করেছে, এটা শুনে সবাই খুশি হইছে। আসলে আমার ছেলের জন্য মানুষের দোয়া আর ভালোবাসা ছিল, তা না হলে ওরে পড়ালেখা করাইতে পারতাম না। সাকিবের রেজাল্ট শুনে খুশিতে আমাদের পরিবারের সবাই কান্না করছে। আমরা তো আনন্দে চোখের পানি ধরে রাখতে পারি নাই। তবে ছেলে পাস করায় কলেজের পড়ালেখা নিয়ে চিন্তাও হচ্ছে।

শাকিব এসএসসিতে জিপিএ ৫ পাওয়ার খবর শুনে সাটুরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শান্তার রহমান সাকিবকে কিছু বই ও ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। স্কুলের প্রধান শিক্ষক মো.জসিম উদ্দিন জানান, পড়ালেখার বিষয়ে সাকিব খানের মনবোর ছিল অনেক কঠিন। ক্লাসে পড়ার সময় খুব মনযোগী ছিল সব সময়। সাকিবের মেধার কাছে দারিদ্রতা হার মেনেছে। এবছরের এসএসসি পরীক্ষায় ১২০০ নম্বরের মধ্যে সাকিব খান ১১৮০ নম্বর পেয়েছে। এমন মেধাবী ছিক্ষার্থী খুব কম আছে। তারমতো শিক্ষার্থী আমাদের স্কুলের জন্য গর্বের। তার মেধা ও সাফল্য ধরে রাখতে পারলে দেশ ও জাতি একজন মেধাবী পাবে। আমরা সাকিবের জন্য দোয়া করি,যাতে জীবনে অনেক বড় হতে পারে।

মেধাবী সাকিব খান জানায়, আমরা তো গবীর মানুষ। তাই পড়ালেখা চালিয়ে যেতে বাবার সাথে চায়ের দোকানে কাজ করেছি। আমি পরীক্ষায় চেষ্টা করেছি, মানুষের দোয়া আর ভালোবাসায় ভালো রেজাল্ট করেছি। আমার ইচ্ছা আমি পড়ালেখা শেষ করে,বিসিএস পরীক্ষার মাধ্যমে সরকারি ভালো কোন চাকুরি করবো। কারন মানুষ পড়ালেখার বিষয়ে আমাকে সাহায্য করেছে, আমি বড় হয়ে মানুষের সাহায্য করতে চাই এবং দেশ ও জাতিকে ভালো কিছু উপহার দিতে চাই। তাছাড়া কোন কাজ কে? আমি ছোট করে দেখি না। 

Sangbad Sarabela

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী আবু জাফর

যোগাযোগ: । 01894-944220 । [email protected], বিজ্ঞাপন: 01894-944204

ঠিকানা: বার্তা ও বাণিজ্যিক যোগাযোগ : বাড়ি নম্বর-২৩৪, খাইরুন্নেসা ম্যানশন, কাঁটাবন, নিউ এলিফ্যান্ট রোড, ঢাকা-১২০৫।

আমাদের সঙ্গে থাকুন

© 2024 Sangbad Sarabela All Rights Reserved.