× প্রচ্ছদ বাংলাদেশ বিশ্ব রাজনীতি খেলা বিনোদন বাণিজ্য লাইফ স্টাইল ভিডিও সকল বিভাগ
ছবি ভিডিও লাইভ লেখক আর্কাইভ

টেক্সটাইল কলেজে শিক্ষক সংকট, শিক্ষায় নেই গতিশীলতা

আলভী আহমেদ, বুটেক্স

১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৭:৪৬ পিএম

সরকারের বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়াধীন বস্ত্র অধিদপ্তর কর্তৃক পরিচালিত এবং বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয়(বুটেক্স) অধিভুক্ত তিনটি টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে রয়েছে শিক্ষক সংকট। এতে স্থায়ী শিক্ষক না থাকায় ক্লাস কার্যক্রম চালাতে হচ্ছে খণ্ডকালীন শিক্ষক দ্বারা। 

যেসব কলেজে স্থায়ী শিক্ষক সংকট রয়েছে সেগুলো হলো রংপুরে অবস্থিত ড. এম.এ. ওয়াজেদ মিয়া টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ, গোপালগঞ্জের শেখ রেহানা টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে এবং জামালপুরের শেখ হাসিনা টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ। কলেজ তিনটিতে যথাক্রমে ২০১৮-১৯, ২০২০-২১ ও ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষ হতে বিএসসি ইন টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্সে শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়। বর্তমানে কলেজগুলোতে যথাক্রমে ৬০০ জন, ৩৬০ জন ও ২৪০ জন শিক্ষার্থী অধ্যয়নরত আছে।

জানা যায়, কয়েকজন শিক্ষককে দিয়ে সংযুক্তিতে কোনো রকমে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। এ নিয়ে কর্তৃপক্ষ বরাবর নানা অভিযোগের পরও সমাধানের মুখ দেখি নি, এতে শিক্ষা কার্যক্রমে গতিশীলতায় ব্যাঘাত ঘটছে।  স্থায়ী শিক্ষক সংকটে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন শিক্ষার্থীরা। নামমাত্র কিছু খন্ডকালীন শিক্ষক দিয়ে তাদের পাঠদানে শিক্ষার্থীরা পড়ছেন ভোগান্তিতে।

আরও জানা যায়, তিন কলেজে স্থায়ী পদের ব্যবস্থা থাকলেও নিয়োগ বিধি সংক্রান্ত জটিলতায় টেক্সটাইলে (কারিগরি) কোনো স্থায়ী শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। আমলাতান্ত্রিক জটিলতায় একটি নিয়োগ বিধি করতে পারে নি বস্ত্র অধিদপ্তর। যা দীর্ঘ ছয় বছরের দীর্ঘসূত্রতায় নিয়োগ বিধি আশার আলো দেখতে পায়নি।

এ ব্যাপারে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক টেক্সটাইল কলেজের এক শিক্ষক জানান, নতুন তিনটি ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে বিভাগভিত্তিক শিক্ষক পদ তৈরি করা হয়েছে। কিন্তু পুরোনো কলেজসমূহে শিক্ষকদের বিভাগীয় পদ ছিল না। তাদের পদের নাম কারিগরি হিসেবে বিধিতে উল্লেখ আছে। ফলে নতুন কলেজের বিভাগভিত্তিক পদে নতুন নিয়োগ বিধির অভাবে শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া যাচ্ছে না। গত ছয় বছর ধরে নিয়োগ বিধির কাজ চলমান আছে, কিন্তু তা আশার আলো দেখতে পায়নি। কিছু শিক্ষক সংযুক্তিতে নতুন কলেজে গিয়ে পাঠদান করছেন। এতে নতুন-পুরাতন দুই ধরনের কলেজেই চরম শিক্ষক ঘাটতি দেখা দিয়েছে।

এসব কলেজের শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, তারা ক্লাসে এসে দেখেন শিক্ষক নেই। শিক্ষাজীবনেও তারা কোনো স্থায়ী শিক্ষকের দেখা পাচ্ছেন না। অধিকাংশ শিক্ষার্থী এমন পরিস্থিতি আগে জানলে এসকল প্রতিষ্ঠানে কখনোই ভর্তি হতেন না বলে জানিয়েছেন।

আরও জানা যায়, সমস্যার ব্যাপারে কলেজ কর্তৃপক্ষকে বারবার বলার পরেও কর্তৃপক্ষ কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না এবং এটি দপ্তরের বিষয় উল্লেখ করে কলেজ অধ্যক্ষদের কিছু করার নেই বলে শিক্ষার্থীদের জানান।

বিষয়টি নিয়ে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গের সাথে কথা বলে জানা যায়, তাদের নিয়োগবিধির কার্যক্রম চলমান আছে। কিন্তু কবে তা আশার মুখ দেখবে, তা কেউ বলতে পারছে না।

Sangbad Sarabela

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী আবু জাফর

যোগাযোগ: । 01894-944220 । [email protected], বিজ্ঞাপন: 01894-944204

ঠিকানা: বার্তা ও বাণিজ্যিক যোগাযোগ : বাড়ি নম্বর-২৩৪, খাইরুন্নেসা ম্যানশন, কাঁটাবন, নিউ এলিফ্যান্ট রোড, ঢাকা-১২০৫।

আমাদের সঙ্গে থাকুন

© 2024 Sangbad Sarabela All Rights Reserved.