× প্রচ্ছদ বাংলাদেশ বিশ্ব রাজনীতি খেলা বিনোদন বাণিজ্য লাইফ স্টাইল ভিডিও সকল বিভাগ
ছবি ভিডিও লাইভ লেখক আর্কাইভ

‘সমলয়’ পদ্ধতিতে ৫০ একর জমিতে হবে বোরোর আবাদ

মো. আবুল হাসেম, মাটিরাঙ্গা (খাগড়াছড়ি)

২১ ডিসেম্বর ২০২৩, ১৪:০৫ পিএম

খাগাড়ছড়ির মাটিরাঙ্গায় আদি পদ্ধদির বদলে ‘সমলয়’ পদ্ধতিতে বোরো ধানে বীজতলা তৈরি শুরু হয়েছে। কৃষিকে আধুনিক ও লাভজনক করতে টেকসই যান্ত্রিকীকরণের উদ্যোগের অংশ হিসেবে ‘সমলয়’ পদ্ধতি বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।  

কৃষকরা মাঠে একসঙ্গে একই জাতের ধান, একই সময়ে যন্ত্রের মাধ্যমে রোপণ করতে পারবেন। ধান চাষে এ রকমের একটা কার্যকরী উপায় বের করেছেন কৃষি বিজ্ঞানীরা। একই সাথে তারা পদ্ধতিটির নাম দিয়েছেন ‘সমলয়’ পদ্বতি। 

উপজেলা কৃষি বিভাগ সূত্র জানায়, মাটিরাঙ্গার তবলছড়ির সিংহপাড়ায় ৪ হাজার ৫০০ ট্রেতে বোরো ধানের বীজ বপন করা হয়েছে। এই বীজ ৫০ একর জমিতে রোপণ করা যাবে। এই পদ্ধতিতে উৎপাদিত চারা পরবর্তী ২৫দিনের মধ্যে রাইস ট্রান্সপ্লান্টের মাধ্যমে মাঠে রোপণ করা হবে। চারা রোপনের পাঁচ মাসের মাথায় ধান কাটা হয়। আধুনিক কৃষি যন্ত্রগুলো অল্প সময়ে অনেক বেশি কাজ করে। এগুলো পরিচালনার জন্য জনবল লাগে কম। ট্রে পদ্ধতিতে চারা টেনে তুলতে হয় না, তাই চারার শিকড় ছিঁড়ে না। ফলে শিকড় দ্রæত মাটি থেকে খাদ্য গ্রহণ করে এবং গাছ দ্রুত বেড়ে ওঠে।

প্রণোদনা কর্মসূচির আওতায় মাটিরাঙ্গার তবলছড়ির সিংহপাড়ায় ৪ হাজার ৫০০ ট্রে-তে বোরো ধানের বীজ বপন করা হয়েছে। সমলয় পদ্ধতিতে ৫০ একর জমিতে আলতাফ বিএল ৭০ হাইব্রিড জাতের বোরো ধান চাষ কবরে ৭৩ কৃষক। এই পদ্ধতিতে উৎপাদিত চারা পরবর্তী ২৫দিনের মধ্যে রাইস ট্রান্সপ্লান্টের মাধ্যমে মাঠে রোপণ করা হবে। চারা রোপনের পাঁচ মাসের মাথায় ধান কাটা হবে। 

সিংহপাড়া ব্লকের কৃষক মো. আলী হায়দার বলেন, ‘এ পদ্ধতিতে বীজতলা তৈরি বা চাষাবাদ পদ্ধতি আগে কখনো দেখিনি। প্রথমবারের মতো আমরা ৭৩জন কৃষক এ পদ্ধতিতে ৫০ একর জমিতে চাষাবাদ করছি। আশা করি ফলনও ভালো হবে। এ বছর ফলন ভালো হলে ভবিষ্যতে এ পদ্ধতির চাষাবাদ বাড়বে। কৃষক মো. আমির হোসেন বলেন, এ পদ্ধতি ব্যবহার করলে শ্রমিকের মজুরি কম লাগবে। এতে ধানের উৎপাদন খরচ কমে যাবে।

উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা নুর মোহাম্মদ বলেন, ট্রে পদ্ধতিতে চারা টেনে তুলতে হয় না, তাই চারার শিকড় ছিঁড়ে না। ফলে শিকড় দ্রুত মাটি থেকে খাদ্য গ্রহণ করে এবং গাছ দ্রুত বেড়ে ওঠে। ট্রে-তে চারা উৎপাদনে জমির অপচয় কম হয়। রাইস ট্রান্সপ্লান্টার দিয়ে চারা একই গভীরতায় সমানভাবে লাগানো যায়। কৃষক ফসল একত্রে মাঠ থেকে ঘরে তুলতে পারেন।

মাটিরাঙ্গা উপজেলা কৃষি অফিসার মো. সবুজ আলী বলেন, ৫০ একর জমিতে বোরো ধান চাষের জন্য ট্রে পদ্ধতিতে বীজতলা তৈরি, সার, বীজ, কীটনাশকসহ ফসল কাটা পর্যন্ত প্রয়োজনীয় সকল খরচ বহন করবে সরকার। একজন কৃষক শুধুমাত্র জমি দিয়ে সহযোগিতা করছে। এ পদ্ধতি অবলম্বনে কৃষকেরা লাভবান হবেন বলে জানান তিনি। এতে ধানের উৎপাদন খরচ কমানোসহ শ্রমিক সংকট নিরসন হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন স্থানীয় কৃষকেরা। কৃষকরা এবছর সমলয় চাষ পদ্ধতি শিখে আগামীতে নিজেরা এ পদ্ধতিতে ধান চাষ করবে এবং অন্য কৃষকদের উৎসাহিত করবে। 

Sangbad Sarabela

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী আবু জাফর

যোগাযোগ: । 01894-944220 । [email protected], বিজ্ঞাপন: 01894-944204

ঠিকানা: বার্তা ও বাণিজ্যিক যোগাযোগ : বাড়ি নম্বর-২৩৪, খাইরুন্নেসা ম্যানশন, কাঁটাবন, নিউ এলিফ্যান্ট রোড, ঢাকা-১২০৫।

আমাদের সঙ্গে থাকুন

© 2024 Sangbad Sarabela All Rights Reserved.