× প্রচ্ছদ বাংলাদেশ বিশ্ব রাজনীতি খেলা বিনোদন বাণিজ্য লাইফ স্টাইল ভিডিও সকল বিভাগ
ছবি ভিডিও লাইভ লেখক আর্কাইভ

ফুলবাড়ীতে শীতের প্রকোপে ব্যাহত বোরো ধানের চাষাবাদ

ফুলবাড়ী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি

২২ জানুয়ারি ২০২৪, ১৬:৪৪ পিএম

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে কুয়াশা আর কনকনে ঠাণ্ডায় ব্যাহত হচ্ছে বোরো মৌসুমের চাষাবাদ। বিগত মৌসুমে পৌষ মাসেই কৃষকরা জমিতে বোরো ধানের চারা রোপন করেছিলেন। কিন্তু এবছর মাঘ মাসে এসেও এখন পর্যন্ত জমিতে শুরু করতে পারেননি বোরো চারা রোপন কাজ। তবে কৃষকরা বলছেন-চাষাবাদের সকল প্রস্তুতি নেওয়া হয়ে গেছে। আবহাওয়া অনুকূল হওয়া মাত্রই শুরু করবেন জমিতে বোরো চারা রোপণের কর্মযজ্ঞ। 

কৃষকরা যখন চাষাবাদের অনুকুল আবহাওয়ার প্রতীক্ষা করছেন তখন সুখবর পাওয়া যায়নি আবহাওয়া বিভাগ থেকে। কুড়িগ্রামের রাজারহাট কৃষি আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগার সূত্রে জানা গেছে, জেলায় সোমবার সকালে তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৮ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এই তাপমাত্রা এ বছর এখন পর্যন্ত রেকর্ড হওয়া সর্বনিম্ন। এর সাথে শীতের তীব্রতা বাড়াচ্ছে ৮ থেকে ১২ কিলোমিটার বেগে বয়ে যাওয়া হিমেল হাওয়া। পাশাপাশি আগামী ২৪ ঘন্টায় আবহাওয়া পরিস্থিতি অনেকটা অপরিবর্তিত থাকবে বলেও জানিয়েছে আবহাওয়া বিভাগ। এমন পরিস্থিতিতে থমকে আছে বোরো মৌসুমের চাষাবাদ। বোরো ধানের বীজতলা নিয়ে শঙ্কার কথা জানিয়েছেন অনেক কৃষক। 

উপজেলার ফুলবাড়ী সদর ইউনিয়নের চন্দ্রখানা গ্রামের কৃষক বাদশা সরকার বলেন, আমরা প্রতিবছরই পৌষের শেষ নাগাদ জমিতে বোরো ধানের চারা রোপন করি। কিন্তু এ বছর খুব ঠাণ্ডা। ঠাণ্ডার কারণে মাঘের প্রায় সপ্তাহখানেক সময় পার হলেও এখনো জমিতে চারা রোপণ কাজ শুরু করতে পারিনি। ঠাণ্ডায় বীজতলার চারা দিনে দিনে সাদা হয়ে যাচ্ছে। বোরো চাষাবাদের সব প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছি। রোদ উঠলেই জমিতে চারা রোপণের কাজ শুরু করবো। 

বড়ভিটা ইউনিয়নের উত্তর বড়ভিটা গ্রামের কৃষক মতিউর রহমান বলেন, বোরোর আবাদ করার জন্য জমিতে চাষ দিয়ে জমি প্রস্তুত করেছি। কিন্তু যে ঠাণ্ডা। এই ঠাণ্ডায় জমিতে চারা রোপণ করে কি লাভ হবে। বীজতলায় চারা বাঁচানোই দায় হয়ে পড়েছে। একই এলাকার কৃষক নজরুল ইসলাম বলেন, এবারে বীজতলা তৈরি করতে কিছুটা বিলম্ব হয়েছে। তারউপর যে ঠাণ্ডা পরেছে তাতে বীজতলা অবস্থা একেবারেই ভালো না। আবাদ করবো কিভাবে চিন্তায় আছি। 

বোরো মৌসুমের চাষাবাদের বিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নিলুফা ইয়াসমিন জানান, চলতি মৌসুমে উপজেলায় ১০ হাজার ১৯০ হেক্টর জমিতে বোরো চাষাবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত ৬০ থেকে ৭০ হেক্টর জমিতে চারা রোপন করা হয়েছে। তীব্র ঠাণ্ডার কারণে কৃষকদের বোরো চারা রোপণে নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে বীজতলার প্রতি বাড়তি যত্ন নিতে কৃষকদের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে বোরো চাষাবাদের লক্ষ্যমাত্রা পুরোপুরি অর্জিত হবে বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। 

Sangbad Sarabela

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী আবু জাফর

যোগাযোগ: । 01894-944220 । [email protected], বিজ্ঞাপন: 01894-944204

ঠিকানা: বার্তা ও বাণিজ্যিক যোগাযোগ : বাড়ি নম্বর-২৩৪, খাইরুন্নেসা ম্যানশন, কাঁটাবন, নিউ এলিফ্যান্ট রোড, ঢাকা-১২০৫।

আমাদের সঙ্গে থাকুন

© 2024 Sangbad Sarabela All Rights Reserved.