× প্রচ্ছদ বাংলাদেশ বিশ্ব রাজনীতি খেলা বিনোদন বাণিজ্য লাইফ স্টাইল ভিডিও সকল বিভাগ
ছবি ভিডিও লাইভ লেখক আর্কাইভ

তিন দিবসের বাজার ধরতে ব্যস্ত ঝিনাইদহের ফুলচাষিরা

এম এইচ রুবেল, ঝিনাইদহ

১২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৪:২৬ পিএম

দরজায় কড়া নাড়ছে বসন্ত, বিশ্ব ভালোবাসা দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। এই তিন দিবসের বাজার ধরতে ব্যস্ত সময় পার করছেন ঝিনাইদহের ফুলচাষিরা। দিবসগুলোতে দাম ভালো পেলে গত বছরে হরতাল অবরোধে যে ক্ষতি হয়েছে তা পুষিয়ে লাভের মুখ দেখবে বলে আশা তাদের। 

জেলার সদর উপজেলার গান্না গ্রামের মাঠ। মাঠ ভর্তি বাগানে শোভা পাচ্ছে গাঁদা, গোলাপ, জারবেরা, চন্দ্রমল্লিকাসহ নানা জাতের ফুল। রংবেরং এর ফুলে মাঠগুলো সেজেছে যেন নতুন সাজে। সেই ফুলের বাগানে পরিচর্যায় ব্যস্ত চাষিরা। 

এখন ফুলের ভরা মৌসুম তারপরও ধরতে হবে তিনটি উৎসব। যে কারণে ব্যস্ততা বেড়েছে তাদের। ফুলের কড়ি ধরে রাখতে আর ফলন ভালো পেতে বাগানগুলোতে চলছে পরিচর্যা। কেউবা জমিতে সেচ দিচ্ছে, করছে আগাছা দমন আবার কেউ করছেন কীটনাশক স্প্রে। এদিকে ভালো ফলন পেতে কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে দেয়া হচ্ছে নানা পরামর্শ।

ঋতুরাজ বসন্ত, ভালোবাসা দিবস আর আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ফুলের চাহিদা থাকে বেশি। সেই চাহিদা মিটিয়ে ভালো লাভের আশায় দিনরাত পরিশ্রম করছেন কৃষকরা। দিবসগুলোতে ঘীরে সারা বছরের লাভ-লোকসানের হিসাব মেলান তারা। উর্দ্ধগতির বাজারে ফুল চাষে বেড়েছে সব ধরনের খরচ। তাই দাম ভালো পেলে হরতাল অবরোধে যে ক্ষতি হয়েছে তা কাটিয়ে লাভের মুখ দেখবেন এমনটিই আশা তাদের।

ফুলচাষি সাধন কুমার জানান, বসন্ত, ভালোবাসা ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ফুলের চাহিদা থাকে বেশি। তবে সঠিক সময়ে যদি ফুল তুলে বাজার ধরতে পারি তাহলে এবার ভালো দাম পাব বলে আমি আশা করছি।

অপর ফুল চাষী বিধান বিশ্বাস জানান, হরতাল অবরোধে আমাদের যে ক্ষতি হয়েছে তা কাটিয়ে এবছর লাভের মুখ দেখবো এমনটিই আশা করছি।

পারভেজ জানান, আমি ফুলের বাগানে কাজ করি দির্ঘদিন ধরে। তবে এই তিনটি দিবস একই মাসে হওয়াই আমার ব্যস্ততা এতটাই রেড়ে যাই যে আমি কারও সাথে ঠিক মত কথাই বলতে পারি না। এমন কি আমি সময় মত খাবার খেতেও পারি না।

ফুল ব্যবসয়ী ইমতিয়াজ জানান, বর্তমানে বাজারে গোলাপ ফুলের সংকট দেখা দিয়েছে কারণ সামনে বিশ্ব ভালোবাসা দিবস। আর ভালোবাসা দিবসের দিন একটি গোলাপ ৫০ থেকে ৬০ টাকা বিক্রী হবে বলে আশা করি।

ঝিনাইদহ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আজগর আলী সংবাদ সারাবেলাকে জানান, ফলন ভালো পেতে কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে কৃষকদের দেওয়া প্রযুক্তিগত সহযোগিতার পাশাপাশি দেওয়া হচ্ছে নানা পরামর্শ।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের দেওয়া তথ্য মতে, এ বছরে রবি মৌসুমে জেলায় ৫৪ হেক্টর জমিতে আবাদ করা হয়েছে নানা জাতের ফুলের। যা বিক্রি করে আয় হবে প্রায় আড়াই কোটি টাকা।

Sangbad Sarabela

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী আবু জাফর

যোগাযোগ: । 01894-944220 । [email protected], বিজ্ঞাপন: 01894-944204

ঠিকানা: বার্তা ও বাণিজ্যিক যোগাযোগ : বাড়ি নম্বর-২৩৪, খাইরুন্নেসা ম্যানশন, কাঁটাবন, নিউ এলিফ্যান্ট রোড, ঢাকা-১২০৫।

আমাদের সঙ্গে থাকুন

© 2024 Sangbad Sarabela All Rights Reserved.